Archive for the ‘Bangla Poetry’ Category

মাননীয় ঈশ্বর,

আপনি হেরেছেন,
বাংলাদেশ জিতেছে।

সত্যকে স্বীকার করা এখানে গুজব,
মিথ্যাকে স্বীকার করা মাথা নোয়ানো মর্যাদা।

জনতার সংঘবদ্ধ সংগ্রাম এখানে হয় দলীয় ষড়যন্ত্র,
অথচ রাজনৈতিক রাহাজানি আখ্যায়িত হয় রাষ্ট্রীয় গনতন্ত্র।

মাননীয় ঈশ্বর,

শক্তির বিনাশ হয় না! তবে এটাও সত্যি যে বাংলায় শক্তির উৎপত্তিস্থল দালালকেন্দ্রিক, ধর্মান্ধ;
শক্তির উৎপত্তিস্থলে মনুষ্যত্বহীন নপুংসক ক্ষমতা, চাটুকারিতায় যারা চেটে নেয় বাংলার সম্ভ্রম,
রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুট হয় তাদের আত্ম ধর্ষনবোধ সম্পন্ন দর্শন তত্ত্বে।

মাননীয় ঈশ্বর,

বিকারগ্রস্থ মিথ্যাচারে আমাদের বোধশক্তি অতিষ্ঠ,
রাজনীতিবিদগণের প্রলাপ এখন উচ্চমার্গীয় ভাষাশৈলী,
সুশীল সম্প্রদায় এখানে দলীয় দালাল,
বুদ্ধিজীবীগন রাষ্ট্রীয় আবর্জনা।
চেতনাবিদগন কিবোর্ডে অতিশয় ব্যস্ত বক্তব্য সংস্কার-প্রকাশে,
অশিক্ষিত জনশক্তিকে সন্ত্রাসবাদে লেলিয়ে করানো হচ্ছে কর্মসংস্থান,
আর বাংলার সাংবাদিক ভাইয়েরা নিজেরাই ব্যস্ত নিজেদের নিরাপত্তা ঢাল অটুট রাখতে।

হায় ঈশ্বর,
‘৭১ এ অর্জিত
এই কেমন মাইরি রাষ্ট্র?

Advertisements

প্রেমনামক লীলাখেলায় মত্ত তুমি হও বেশ্যা,
আর কর্পোরেট খাতিরে সেক্স ওয়ার্কার।
নারীবাদী তুমি শুশীল সমাজের বিক্রিত পন্য।

বীর্য তোমার পূর্ণতা পায় অধিক অক্ষম শুক্রাণুতে,
আর তাতেই তুমি রঙধনু মনের সমকামীতায় আসক্ত,
পুরুষবাদী তুমি শুশীল সমাজের নষ্ট মুক্তমনা।

সেলফি দিয়ে ধারণ করো নিত্য নতুন সংস্কৃতি,
পুরানো ঐতিহ্য কে বিসর্জনে রেখে-
ধর্মীয় বিবেকবোধ প্রকাশ পায় উন্মুক্ত অঙ্গ শোভায়,
মানবতা ফুটে উঠে লেন্সের চতুর ফোকাসের সম্মুখ পানে।
কল্কির টান না শিখেই ইয়াবার জোরে গায়ে জড়াচ্ছো-
গাঁজা পাতার ছবি সম্বলিত টিশার্ট,
আর তাতেই দাবি করো গাঁজার বৈধতা,
আধুনিক যুগ উপযোগী তুমি স্মার্ট গাঁজাখোর!

ধর্ষকদের চাই অহেতুক সামাজিক সমালোচনা,
খুনীদের চাই ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক প্রভাব,
দুর্নীতিবাজদের চাই জনতার মধ্যাঙ্গুলির বিদ্রুপ।
মানুষ মরে গেলে তারকা খ্যাতি পায়,
আর বেঁচে থাকলে ডাইল খেয়ে পচে যায়।

বাঙ্গাল আম জনতার একটাই সকল চাওয়া-পাওয়া,
সবার সব আলোচনা-সমালোচনার প্রলয়ংকারী
বিচার স্থান সর্বদা থাকুক সাথে,
এই মহান অসুস্থ ফেসবুক।

১৩.০৭.২০১৫

তোমাকে লেখার নেশা,
ধর্ষিত হয় নির্ঘুম রাত্রির অবয়বে।
বারবার প্রতি ক্ষনে গুপ্তবেশে,
তোমাকে আঘাত হানে অকথ্যকথন।
তোমাকে গড়ার নেশা বুদ হয়,
অতৃপ্তিকর মস্তিস্কে,
বারবার প্রতিক্ষনে অব্যক্ত প্রনয়ে,
তোমাকে চুর্ন করে আত্ম-প্রলাপ।
তোমার অবাঞ্ছিত লাঞ্চনায়,
কবর খুঁড়েছে জাগতিক সকল প্রবঞ্চন।

তুমি শীতল, অতন্দ্র দাসত্ব।
তুমি শাপগ্রস্ত ঊল্লাস, নিথর সম্মোহ।

২০১৬ইং

স্বার্থহীন ভালোবাসার খোঁজে,
আমরা একদিন অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছিলাম।

যে যার স্বার্থ নিয়েই গৃহে ফেরে,
যে যার স্বার্থ বুঝে নিয়েই
মেতে ওঠে রাত্রির জৈবিক উল্লাস।
যে যার স্বার্থ নিয়েই
কড়া নাড়ে ভালোবাসার ভোরে,
ফিরে পেতে চায়,
রাত্রির যৌবন জ্বলসে ওঠা নিষ্পাপ অভিব্যক্তি।

তুমি কি জানতে,
তাঁর রাত্রি পেরিয়ে কিভাবে সকাল হয়?
বিনিদ্র চোখে নির্লিপ্ত চাহনি
আর দুঠোটে শব্ধহীন প্রলাপ,
তাঁর ভালোবাসা ঘুমোয় অন্য শরীরে,
আর জেগে সে পাহারা দেয় অশান্ত,
অবাধ্য অনূভুতিগুলোকে।

তুমি কি জানো তাঁর সেই রাত্রি যাপনের,
নিরব কান্না কতদূর কতটা নিস্তব্ধতা,
ছড়িয়ে দিতো তারা জ্বলা আকাশে?

স্বার্থহীন ভালোবাসার খোঁজে,
এই আমরাই একদিন অঙ্গীকারবদ্ধ থেকেছিলাম।

১১ জুন, ২০১৭

আমাকে রেপ করো,
কোনো ডাক্তারি চেক আপ হবে না,
হবে না কোনো প্রকার মামলা-মোকাদ্দমা,
কথা দিচ্ছি-
আমিই তোমাদের নোংরা
যৌনতার মাধ্যম হবো,
আমার যৌবন হবে,
তোমাদের কুৎসিত চাহনির খোরাক।

আমাকে পুনরায় রেপ করো,
কোনো প্রকার বাধাত্মক প্রলাপ
বকবো না,
সমাজে নিজেকে দিয়েই প্রচার করবো-
আমার স্বাধীন চেতা মন, আমার দৈহিক ভাঁজের ঢেউ,
তোমাদের যৌনাকাংখা জাগ্রত করার ঐচ্ছিক দলিল।
বিনা সঙ্কোচে ইয়াবা বড়ির মতই
আমাকে গ্রোগাসে টেনে নিতে পারো,
তোমাদের বহুগামী অণ্ডকোষের তান্ডব মঞ্ছে।
আমি সঁপে দিবো আমার নিস্বার্থ যৌবন,
তোমাদের সভ্য মাদক উল্লাসে।

আমি আদিম, মহা প্রলয়োংকারী নেশা,
মানব সৃষ্টি সূচনার প্রাম্ভব হতেই,
আমার শারীরিক যৌবন তোমাদের
মদ্যপ জলসা ঘর।

হাজার বছরের আরাধ্য সাধন তীর্থ,
আমার এই জৈবিক শরীর,
যেথায় বাস করে সৃষ্টিকর্তার
নিকৃষ্টতম ঘৃণ্য অস্তিত্ব!

আহমেদ বাপ্পি

হেলুসিনেট যুবক