ইচ্ছে সুখী

Posted: 28/06/2018 in কবিতা, বাংলা কবিতা, Poetry

কেমন আছো, ভাল নাকি খারাপ কোনটাই শুনতে চাই না,
শুধু জানতে চাই ঠিক কেমন আছো তুমি? কেমন করে
কাটছে তোমার অষ্ট প্রহরের বেলা গুলো, অবেলায় কান্না করে;
নাকি কারো পাশে বসে ঝিল দেখায় ব্যস্ত থাকো তুমি?
হয় তো পাশে প্রিয় কারো বাহু ধরে চলন্ত রিকশায় করে,
শ্রাবনের আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে
পার করে দিচ্ছ তোমার পড়ন্ত বিকেলের প্রহর গুলো?
নাকি ব্যস্ত আছো মনের কথা গুলো লেখায় প্রকাশের
জন্য যার প্রতিটি শব্দ গেঁয়ে ওঠে আমাদের সব ইচ্ছা-স্বপ্ন।

কেমন কাটছে এখন তোমার সন্ধ্যেটা নতুন শহরে এসে?
নিশ্চয় কোন কফি শপে অথবা কোন এক পার্কে বসে নির্বাক
গল্প করে নতুবা অনুভব করছো তুমি আমায় নিকোটিনের প্রতিটি টানে;
নাকি ঝগড়া করছো প্রকৃতির সক্ষমতা আর তোমার অক্ষমতা নিয়ে?
ঝেড়ে ফেলে দাও এই সব ফালতু সেন্টিমেন্ট, তুমি হচ্ছো ইচ্ছে সুখী,
প্রকৃতি কারো ইচ্ছা সুখের বাঁধা হতে পারে না, তোমার সুখেও নয়।

তুমি বলেছো অনেকদিন হয় নিজেকে ভেজাও না বৃষ্টিতে, কি করে
ভেজাবে বলো, সব কটা জলের ফোঁটা আমার ভেতরে আঁটকে আছে,
যদি হটাত করে বৃষ্টিতে স্নাত হয়ে যাও, বুজে নিও তখন
সবই তোমার আবেগ যার প্রতিটি ফোঁটায় আমার প্রতিফলন;
পাঁচ দুপুরের নির্জনতায় জমিয়ে রেখেছি এই প্রতিটি বেদনার জল,
শুধু তোমাকে বৃষ্টি স্নান করাবো বলে, কেমন আছো তুমি এখন?

তুমি লিখেছো গ্রীষ্মকালটা আমরা একসাথে কাটিয়েছি,
পূর্ণাঙ্গ একটা ঋতুকাল আমায় ভালবাসতে চেয়েছিলে তুমি।
সমস্ত শরীর জুড়ে বর্ষার বৃষ্টিতে অবগাহন দু’জনের,
শরতের পাগল করা নীলাকাশ, হেমন্তের রোদ্র-ছায়া;
কিংবা প্রচন্ড শীতে উষ্ণতার আশায় জড়িয়ে ধরা অথবা
বসন্তে নতুন প্রকৃতির খুনসুটিতে দুজনের ছুটে বেড়ানো;
কেমন হতো খুব নাকি জানতে ইচ্ছে করে তোমার।

তোমার পাঠানো পূর্ণেন্দু পত্রীর “কথোপকথন ১-৫” পর্ব,
আমি উল্টেও দেখিনি পৃষ্ঠা গুলো, আমার বড্ড অপছন্দ
তার লেখা ছন্দ গুলো; আমার কাছে আমার আদর্শ
আমি, অতঃপর আমি।
আমি দশ দিগন্তের অন্ধকার হবো।
আমি বুজতে পারি তোমার জন্য আমার লেখা
কবিতা গুলো কতটা নিষ্ঠুর কিন্তু মমতাময়ী হয়ে ওঠে,
আমার হৃদয়ে একই সাথে ঘৃণা করতে পারা আবার
একই সঙ্গে বুকে কষ্ট বেঁধে দিয়ে ভালবাসতে পারার সামর্থ্য আছে,
তুমি বোধ হয় জানো না সেটা, আমার কি তাতে?

কোন এক ফাগুনের প্রথম প্রহরে লিখেছিলে,
“আমি শঙ্খ হবো
চন্দনের লাল বেনারসি পরে
সিথির সিঁদুর হবে রক্তাত !
আমি আদিমতা ভালবাসি;
শাদা শবযাত্রার লাল মৃত্যু পদধ্বনি
ঝাপিয়ে তোলে আমার নগ্ন দেহ,
আমি চন্দন হবো।
আচ্ছা শঙ্খের দাম কতো? কিনবে?
কিনবো তো, কি মুল্য তার?
তোমার রক্ত খুঁটে খুঁটে
এক বাটি চন্দনের গন্ধ !!”

শুধুমাত্র তোমার ইচ্ছা সুখের জন্য
অজস্র কান্না আমার এই অবেলায়।
ভালবাসি বিকাল, ভালবাসি কি?
অস্থির খুব অস্থির মন আজ,
বুকের খাঁজ থেকে ভেসে আসা
কাঁঠাল চাপা ফুলের মাদকী সুঘ্রান
আমি খুঁজে ফিরি ভয়ানক এক
তীব্র নেশার উন্মাদনায়;
যে উন্মাদনায় প্রকম্পিত হতে
চাইবে তোমার হৃদয় ।

প্রকম্পিত সেই হৃদয়ের আবেগ দিয়ে
ঢেকে দিতে তুমি চাইবে দুষ্টু
কাঁপা কাঁপা শঙ্খ হাসি,
যে হাসির গভীরে রয়ে যায়
এক রাশ ভালবাসার অপূর্ণতা !

২৮ পৌষ, ১৪২০
১১.০১.২০১৪


Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s